টাকা ইনকাম করার সহজ পথ – ডিজিটাল মার্কেটিং

টাকা ইনকাম করার সহজ পথ ডিজিটাল মার্কেটিং

টাকা ইনকাম করার সহজ পথ ডিজিটাল মার্কেটিং। এটি এমন একটি প্লাটফর্ম, যেখানে  আপনি আপনার যেকোনো পণ্য অথবা সার্ভিসকে মার্কেটপ্লেসে প্রচার করতে পারবেন। এই জন্যই মূলত ডিজিটাল মার্কেটিং এতটা জনপ্রিয়। আমি জানি,আপনারা সবাই ইউটিউব বা ব্লগ থেকে অনেক কিছুই শিখেছেন। কিন্তু আমি ডিজিটাল মার্কেটিং এর এমন কয়েকটা প্লাটফর্ম অথবা চ্যানেল নিয়ে কথা বলব,যেগুলোর মাধ্যমে আসলে ডিজিটাল মার্কেটিং করা হয়। 

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এস ই ও)

ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে কথা বলতে গেলে প্রথমেই যা আসে তা হলো সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এস ই ও)আপনারা সবাই জানেন, এটি হলো এমন একটি কৌশল, যার মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট সার্ভিস রিলেটেড কিওয়ার্ডের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট পেজকে; গুগলের ফার্স্ট পেজের মধ্যে আনতে পারবেন। 

 আর গুগলের ফাস্ট পেজের মধ্যে, যখনই আপনার পেজ চলে আসবে অথবা র‍্যাংকিং -এ চলে আসবে। তখন যেকোন মানুষ, গুগোল সার্চ ইঞ্জিনের মাধ্যমে নির্দিষ্ট কিওয়ার্ড লিখে সার্চ করলে আপনার ওয়েবসাইটের ওই পেজটি প্রথমেই খুঁজে পাবে।

এবার ধরুন আপনার যদি কোন ই-কমার্স, এফিলিয়েট কিংবা সার্ভিস বা ব্যবসা রিলেটেট ওয়েবসাইট থাকে, তাহলে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের মাধ্যমে মানুষ প্রথমেই আপনার ওয়েবসাইট টি খুঁজে পাবে। আর এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের সেলস বাড়বে।

  বিষয়টি কি মজার, তাই না? এবার আপনাদের মনে প্রশ্ন আসতে পারে টাকা ইনকাম করার সহজ পথটা কি এতটাই মসৃণ? উত্তরে বলবো খুব বেশি কঠিনও নয়। এই যে সবাই গুগলের মাধ্যমে আপনাকে খুজে পেলো, বা আপনার কিওয়ার্ডটি গুগলো র‍্যাংকিং – চলে এসেছে এর জন্য আপনাকে খুবই সাধারণ কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। সঠিক অধ্যাবসায় এবং সঠিক জ্ঞান থাকলে খুব সহজেই আপনার কিওয়ার্ডটি গুগল র‍্যাংকে আসা সম্ভব। 

বিষয়টি খুব জটিল কিছু নয়। শুধুমাত্র আপনাকে কয়েকটি ধাপ অনুসরন করতে হবে। এর মধ্যে নাম্বার ওয়ান হচ্ছে অনপেজ, এরপর কন্টেন্ট প্লানিং, সর্বশেষ এবং দীর্ঘমেয়াদী ধাপটি হলো অফপেজ । আর এই পুরো বিষয়টি নিয়েই হলো সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা এস ই ও।

অফপেজ এস ই ও -কে অনেকে ব্যাকলিংক বলে আবার কেউ কেউ লিংক বিল্ডিং বলে। যাই হোক,  ব্যকলিংক বা লিংক বিল্ডিং হলো আপনার ওয়েবসাইট থেকে নির্দিষ্ট পণ্য বা সার্ভিস রিলেটেড পেজকে কে বিভিন্ন ওয়েবসাইটের সঙ্গে লিংক করা। যেমনঃ প্রফাইল ক্রিয়েশন, ফোরাম পোস্টিং , ইমেজ শেয়ারিং, পিডিএফ সাবমিশন, ডিরেক্টরি ইত্যাদি। 

এগুলোর মাধ্যমে অনেক ভিজিটর আপনার পেজে আসবে। যদি আপনার ওয়েব সাইট ফার্স্ট পেজে না আসে, তাহলে মানুষ আপনাকে খুজে পাবে না কারন মানুষ কখনই গুগলের প্রথম পেজের পরের সার্চ রেজাল্ট পেজে ভিজিট করে না। 

ফাইবারেও অনেকটা একই রকম টেকনিক ব্যবহার হয়। এখানে মূলত ইমেজ এস ই ও এবং টাইটেলের মধ্যে কিওয়ার্ড দিতে হয়। অবশ্যই ডেস্ক্রিপশনের মধ্যে ৩-৪ বার কিওয়ার্ড ব্যাবহার করতে হয়। 

এখানে  ইমেজের অল্টার ট্যাগ বা নামে মেইন কিওয়ার্ড দিতে হবে। এটাই হচ্ছে মূলত ফাইবারের মেইন গিগ এস ই ও। 

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

টাকা ইনকাম করার সহজ পথের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং বিজনেস এর জন্য খুবই জরুরী বা গুরুত্বপূর্ণ।  সোশ্যাল মিডিয়া সাধারণ মানুষকে ট্রাফিক প্লাস এনে দিতে পারে। সোশাল মিডিয়া বা ফেসবুকের মাধ্যমে আপনি সরাসরি আপনার কাঙ্খিত ক্লাইন্ট পেতে পারেন। আপনাকে একটি ফেসবুক চ্যানেল ওপেনের মাধ্যমে একটি আই ক্যাচি লগো এবং কভার ফটো পাবলিশ করার মাধ্যমে শুরু করতে পারেন। এরপর এড ক্যাম্পেইন রান করে সারা বিশ্বের যে কোন যায়গা থেকে আপনি আপনার ব্যবসার জন্য সঠিক ক্লাইন্ট খুজে পেতে পারেন। পোস্টের ইমেজ গুলো সহজেই ক্যানভা বা যে কোন ইমেজ এডিটিং সফটওয়ারের মাধ্যমে খুব সহজেই তৈরি করে নিতে পারবেন। 

 আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হলো লিংকডিন। লিংকডিন হচ্ছে  একটি জনপ্রিয় প্রফেশনাল প্লাটফর্ম।  যেখানে আপনি একটা প্রোফাইল বা বিজনেস পেজ বিভিন্ন ক্লায়েন্টের কাছে পৌঁছে দিতে পারেন।  এসব ফ্রি মার্কেটিং করার ক্ষেত্রে সবার আগে আপনার টার্গেটেড অডিয়েন্স কারা তাদেরকে খুজে বের করতে হবে। কারা আপনার প্রোডাক্ট ও সার্ভিস কিনতে পারে, তাদের একটা ক্যাটাগরি লিস্ট আপনাকে সুন্দর ভাবে বের করে রাখতে হবে।  যদি আপনি এই জিনিসটা না করেন, সেক্ষেত্রে আপনি অপ্রয়োজনীয় ট্রাফিক এনে আপনার কোন লাভ হবে না। অর্থাৎ ট্রাফিক যদি আপনার সাইটে বেশি আসে তাহলেই তারা আপনার সার্ভিস অথবা প্রডাক্ট কিনবে। 

এটি এমন একটি প্লাটফর্ম যেখানে প্রফেশনালরা তাদের পার্সোনাল প্রোফাইল খুলে রাখে। তো আপনি পারেন তাদেরকে টার্গেট করে রিলেভেন্ট পোস্ট আপনার প্রোফাইলে করতে পারবেন।  এতে করে আপনার কনটেন্ট গুলো মানুষ করবে লাইক বা শেয়ার করবে।  অর্থাৎ কেউ কেউ আপনার বিজনেস পেজে গিয়েও ভিজিট করবে।  ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনার সার্ভিস অথবা পণ্য কিনবে। 

ফেসবুক এবং লিংকডিনের মাধ্যমে সরাসরি প্রচুর পরিমানে ট্রাফিক তথা ক্লাইন্ট পেতে পারেন। 

ইউটিউব চ্যানেল 

টাকা ইনকাম করার সহজ পথ হিসেবে ইউটিউব চ্যানেল বর্তমানে খুবই জনপ্রিয়। এটি বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম সার্চ ইঞ্জিন।এই প্লাটফর্মটি ভিডিও কেন্দ্রিক। তাই বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ এই সার্চ ইঞ্জিনের মাধ্যমে ভিডিও তৈরি করে ইনকাম করছে। বিশ্বে এমনও  ভালো ইউটিউবার আছে যারা মাসে কয়েক লক্ষ টাকার বেশি উপার্যন করে প্রতি মাসে । ঘরে বসে ইনকাম করার জন্য ইউটিউব এর কোন বিকল্প নেই। আপনি ঘরে বসে আছেন তো আপনার জন্য একটা চ্যানেল খোলা খুবই সহজ। অবসর সময়ে আপনি মন স্থির করুন কোন কোন বিষয়ের উপরে আপনি কাজ করতে পারবেন আর সে মত একটি চ্যানেল খুলে আপনিও চাইলে বনে যেতে পারেন বিখ্যাত কেউ কিংবা ধনী। 

এখানে আমার একটা বিশেষ উপদেশ হলো, যে বিষয়ে আপনি এক্সপার্ট ,যে বিষয়টির উপর আপনার দক্ষতা আছে, সেই বিষয়ের উপর কন্টেন্ট তৈরি করলে, সেই বিষয়ে আগ্রহী অডিয়েন্স আপনার কন্টেন্টটা পড়বে অথবা আপনার ইউটিউবে চ্যানেলটা দেখবে তাতে করে  ভিউ বাড়বে। আর টপিক যত ভাইরাল হবে ধরে নেবেন আপনার উপার্জনও তত বাড়বে। .  

ইউটিউব চ্যানেলের একটা গোপন ট্রিক্ট আপনার কাছে শেয়ার করছি।  প্রতি সপ্তাহে আপনাকে দুই থেকে তিনটা জন্য খুব ভালো মানের কন্টেন্ট দিতে হবে। আর অবশ্যই কন্টেন্ট পাবলিশ করার ক্ষেত্রে আপনাকে অপটিমাইজ করতে হব। একটি সুন্দর থাম্বনেইল ব্যবহার করতে হবে।  ইউটিউবের এসইও করার জন্য বিস্তারিত অন্যদিন আমি বলব। 

পরিশেষে, যদি আপনি প্রতিনিয়ত কন্টেন্ট আপলোড করে থাকেন ,তাহলে দেখবেন আপনার ভিডিও কিংবা চ্যানেলটি খুব আস্তে আস্তে জনপ্রিয় হয়ে যাচ্ছে।  মনে রাখবেন রাতারাতি কখনো চ্যানেল কে রিচ করার চেষ্টা করবেন না।  এটা একটা নেচারাল বিষয়। যদি আপনার কনটেন্ট প্রতিনিয়ত আপলোড করে থাকেন এবং কনটেন্ট এর মান যদি ভাল থাকে এবং আপনার কন্টেন্ট যদি দর্শকদের উপকারে আসে, তাহলে গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি অবশ্যই অবশ্যই তারা আপনার সাইটে কিংবা চ্যানেলে ভিজিট করবে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *